bangla chati galpo মা! শুধু একবার করবো – 10

bangla chati galpo. কিছুক্ষণ পর মা বাড়িতে ফিরে আসে,
মা-আকাশ কেমন আছে মা?
দিদা- জ্বর বাড়ছে ।
এটা শুনে মা উতলা হয়ে যায়।
মা- তুমি ওষুধ দিয়েছ?

দিদা- হ্যাঁ  আমি জ্বরের ওষুধ দিয়েছি তবুও ওর শরীর থেকে তাপ বের হচ্ছে।
(এই কথা শুনে উদ্ভ্রান্তের মতো দৌড়ে আকাশের রুমে চলে যায়, তার জীবনের সাহারা এভাবে অসুস্থ থাকলে সে ভালো থাকে কি করে! বিছানায় শুয়ে থাকা আকাশের দিকে আনিতা এক করুন দৃষ্টিতে দেখছে। আকাশ আনিতাকে দেখে তার মাথা অন্য দিকে ঘুরিয়ে নেয়। যেন সে জানেই না যে আনিতা দরজায় দড়িয়ে আছে।)
আকাশের দিদা মায়ের পিঠে হালকা ধাক্কা দিয়ে বলে,

bangla chati galpo

দিদা(কানে ফিসফিস করে)- কাছে যা ওর, ওকে জিজ্ঞেস কর যে কেমন আছে। দেখ ওর ভালো লাগবে।)
মা আমার কাছে এগিয়ে আসে।  বেশ কিছুক্ষণের জন্য আমার দিকে তাকিয়ে থাকে। কিন্তু আমি ইচ্ছাকৃতভাবে তাকে না দেখার ভান করি। মা এগিয়ে এসে আমার পাশে বসে,
মা- এখন কেমন লাগছে?

(এই বলে আনিতা আকাশের কপালে হাত রাখে।  আকাশের মাথার উত্তাপ দেখে  আনিতা ভয় পেয়ে যায়। আনিতা আর আকাশকে ইগনোর করতে পারছেনা। তার একমাত্র সন্তান যে অসুস্থ!  ছেলের এমন অসুস্থতায় কথা না বলে কিভাবে থাকে!)
মা- তোর তো খুব জ্বর এসেছে।
আমি-আমি ঠিক আছি। bangla chati galpo

(আনিতা ভাবছে ওর কি হয়েছে, আমার কথার ঠিকমত উত্তর দিচ্ছে না কেন।)
মা- মা আকাশের রক্তের রিপোর্ট নিয়ে আসেনি?(দিদার দিকে তাকিয়ে)
দিদা- তোর একটু আগে বলেছে  ব্লাড রিপোর্ট নিয়ে আসবে আর আকাশকে আবার ডাক্তার দেখাবে।
মা – তুই শুয়ে থাক সোনা, আমি তোর জন্য স্যুপ বানিয়ে আনছি।
আমি- না, আমি খাবোনা।

(আনিতা কথা শুনে চুপ হয়ে যায় আর আকাশের দিকে তাকায় কিন্তু আকাশের চোখ অন্য দিকে ছিলো।  আনিতা ভাবতে তাকে আকাশের কি হয়েছে, গতকাল সে আনিতার সাথে আদর করে কথা বলছিল কিন্তু এখন সে আনিতাকে ইগনোর করছে)

মা- তাহলে অন্যকিছু করে আনি তোর খাওয়ার জন্য?
আমি- আমি খাবো না। দিদা….
দিদা- কি হয়েছে আকাশ।
আমি- আমার কাছে এসো কথা আছে।
দিদা- ঠিক আছে আমি আসছি। bangla chati galpo

( আকাশের দিদা বুঝতেই পারে আকাশ তার মাকে বেশিই ইগনোর করছে।  সে আকাশের সামনের চেয়ারে বসে, আকাশ তার দিদার সাথে কথা বলতে শুরু করে। আর ওদিকে আনিতাকে ইগনোর করে যেন সে ঘরে উপস্থিতই নেই। অনিতা সেখান থেকে উঠে পড়ে তার রুমের দিকে যেতে শুরু করে। একটা বিষয় তার মনে ঘুরপাক খাচ্ছে যে আকাশ কেন এমন করছে, ওভাবে পালটে গেলো কেন, কালকেও তো বড় আদরের সাথে কথা বলছিলো।

আকাশের এমন ইগনোর করা আনিতা একে বারেই নিতেই পারছেনা। সে বুঝতে পারে আকাশকে ইগনোর করাতে আকাশেরও কতই না খারাপ লেগেছে। আনিতার বুকটা ফাকা ফাকা লাগছে, তার কলিজার ধন তাকে ইগনোর করছে এটা সে কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছেনা।
আকাশ আর তার দিদা অনেক সময় ধরে কথা বলে।  আনিতার ঘর থেকে আকাশ আর তার দিদার হাসির শব্দ শোনা যায়, এতে আনিতার ঈর্ষা হতে লাগে।) bangla chati galpo

আমি- দিদা, আমি তোমার হাতের রান্না স্যুপ খাবো।
দিদা- আনিতা আমার থেকেও ভালো স্যুপ করে। আমি- তোমার হাতে রান্না করলে করো নাহলে থাক।(রাগে রাগে)
দিদা- ঠিক আছে আমিই আনছি।

( আকাশের দিদা উঠে পড়ে এরপর রান্নাঘরে যায় আনিতাকে স্যুপ বানাতে বলে। আনিতা অনেক মজাদার স্যুপ বানায়, এতে যদি আকাশ তার মায়ের সাথে ভালো করে কথা বলে- দিদা মনে মনে ভাবতে থাকে।

আনিতা আকাশের জন্য মন দিয়ে গরম স্যুপ রান্না করতে থাকে। কিছুক্ষণ পর স্যুপ রেডি হয়ে যায়। যেটা আকাশের দিদা আকাশের রুমে নিয়ে যায় আর আনিতা হলরুমে বসে থাকে।)

দিদা-  স্যুপ কেমন হয়েছে।
আমি- সেরা হয়েছে দিদা।
দিদা-তোর মা বানিয়েছে।
আমি- বিস্বাদ হয়েছে একদম, খাওয়া যায় এটা! (হঠাৎ কথা ঘুরিয়ে দিলাম)
দিদা- সত্যিই কি? bangla chati galpo

(আনিতা হলরুমে বসে এই কথাটা শুনতে পায়, সে অনেক রেগে যায় কারণ সে ভালো করে রান্না করেছে আর আকাশ কিনা তার রান্নার একটুও প্রসংশা করছেনা!)

দিদা- খেয়ে নে সোনা।
আমি- কিভাবে খাবো দিদা, একটুও মজা হয়নি যে!
দিদা- তোর মা যত্ন করে বানিয়েছে।
আমি- চেষ্টা করছি দিদা।

( আকাশ মুখ কেমন করে যেন স্যুপ খেতে থাকে এতে করে আকাশের দিদা ভাবতে থাকে  হয়তো স্যুপ আসলেই খারাপ হয়েছে।  যখন আকাশ তার স্যুপ শেষ করে, দিদা পাত্রগুলো নিয়ে রান্নাঘরে যায়।)

দিদা – আনিতা স্যুপ এমন রান্না করেছিস কেন?বেচারা আকাশ কত কষ্ট করে শেষ করেছে জানিস!
আনিতা- আমি খারাপ বানাইনি মা।
দিদা – আমি ঠিক বুঝতে পারছিনা কেন তুই এমনটা করলি। bangla chati galpo

(আনিতার মায়ের কথা শুনে আনিতা অনেক দুঃখ পায়, ওদিকে আকাশ মনে মনে খুশি  হচ্ছিল। কিছুক্ষণের মধ্যে আকাশের দাদুও বাড়িতে চলে এলো।)

মা- রিপোর্টে কি এসেছে বাবা।(ব্যাস্ত হয়ে)
দাদু- এত ঘাবড়ে যাবার কিছু নেই, বৃষ্টির কারনে  জ্বর এসেছে। এতো উতলা হসনা মা,  ডাক্তার কিছু ওষুধ দিয়েছে। এই নে। (আনিতা হাতে ওষুধ দিয়ে দেয়।)

(আনিতা তার বাবার কাছে শুনে নেই কোন ট্যাবলেট কখন খেতে হবে। এরপর ট্যাবলেট আর জল তার হাতে নিয়ে আকাশের রুমে যায়।)

মা- সোনা এই ওষুধ খেয়ে নে।

আমি কোন অভিব্যক্তি করি না।  আমার হাত বাড়িয়ে ওষুধ নিই আর শুয়ে শুয়েই খেয়ে নিই।

মা- তোর কি আর কিছু চাই সোনা?
আমি- কিছু না, আমি একা থাকতে চাই। bangla chati galpo

(এটা শুনে আনিতার খারাপ লাগে, একটু অসন্তোষ হয়ে যায় তারপর সেখান থেকে চলে যায়।  সবাই মিলে রাতের খাবার খায় এরপর আকাশ আর তার দিদা  কথা বলতে থাকে। আনিতা এসব দেখে ঈর্ষা করতে থাকে।  ঘুমানোর সময় আসতেই সবাই ঘুমিয়ে পড়ে, কিন্তু অনিতা আকাশের কথা ভাবতে থাকে, তার ঘুম আসেনা। সম্পুর্ন রাতে মাঝে মাঝে আকাশের ঘরে গিয়ে আকাশকে দেখে আসে।)

(সারারাত আনিতা তার দুচোখ এক কর‍তে পারেনি। আকাশকে বারবার দেখে আসা আর তার চিন্তায় না ঘুমিয়েই রাত পার করে দেয়।  সকাল ৫টা বেজে যায় আনিতা বাড়ির কাজ করতে শুরু ক্ক্রে দেয়। কাজ করতে করতে মাঝে মাঝে আকাশের রুমে যায় চুপিচুপি,  তার স্নেহময় চোখে তাকে দেখতে থাকে।

আনিতা আকাশের ঘুমন্ত চেহারা দেখে বলে , ” আমার আকাশ, আমার কলিজা কি মিষ্টি লাগছে।জানিনা আমার সোনা ছেলেটার মনে কি চলছে এই কয়দিন । ও এমন করছে কেন” , সেদিনও তো অনেক প্রশংসা করছিল , হঠাৎ ওর হলোটা কি? ” আনিতা নিজে নিজেই এসব ভাবছিলো, ঠিক তখনই, bangla chati galpo

দিদা- আনিতা আনিতা!
আনিতা আকাশের ঘর থেকে বেরিয়ে আসে
আনিতা – হ্যাঁ মা?
দিদা-  চা করে দে তো মা আর না আকাশের শরীর কেমন আছে?

আনিতা- আমি এখনি দেখে আসছি।
দিদা- তাহলে ওর ঘরে কি করছিলি এতোক্ষণ, কপালে হাত রেখে দেখিসও নি?
আনিতা- আমি কেবল ভিতরে যাচ্ছিলাম, আর তুমি ডাকলে। (মিথ্যা কথা, আনিতা আকাশের রুমে অনেক্ষণ ছিলো তবে কোনো এক জড়তায় আকাশের কপালে হাত রাখতে পারেনা।)

আনিতা গিয়ে আকাশের কপালে হাত রাখে। আকাশের কপাল গতকালের চেয়ে বেশি গরম হয়ে গেছিলো। আনিতার চোখে জল চলে আসে। সে দৌড়ে তার মায়ের কাছে চলে আসে। bangla chati galpo

আনিতা- আকাশের জ্বর বেড়েছে মা।
দিদা- কি বলছিস! দাড়া আমি এখনি তোর বাবা বলে আসি।

আকাশেরদিদা সেখান থেকে গিয়ে আনিতার বাবাকে এই কথা বলে। আনিতার বাবাও এই কথা শুনে বেশ ভয়  পেয়ে যায় আর বলে “আকাশকে আবার ডাক্তারের কাছে নিয়ে যেতে হবে”।  কিন্তু তখনই আকাশকে কেউ বিরক্ত করে না, ওই সময় তাকে ঘুমাতে দেয়। আনিতা দ্রুত তার কাজ শেষ করে, আকাশের কাছে বসে। সকালে যখন আকাশ ঘুম থেকে ওঠে তখন দেখে আনিতা ওর দিকে কি এক মায়াময় দৃষ্টিতে তাকিয়েই থাকে।)

আমি যখন ঘুম থেকে উঠলাম তখন আমার সামনের চেয়ারে মা বসে ছিলো,
মা- তুমি উঠে পড়েছিস সোনা, কেমন লাগছে এখন?
আমি- ঠিক আছি। ( অসুস্থতার কারণে ধীরে বলছিলাম।) bangla chati galpo

মা- সত্যি বল আকাশ।
আমি- সত্যি বলছি।
মা- তোর শরীর থেকে যেন আগুন বের হচ্ছে সোনা, প্লিজ আমাকে সত্যি করে বল কেমন লাগছে?

আমি অন্য দিকে মাথা ঘুরিয়ে বললাম- ভালো আছি।
মা- আমাকে এমন ইগনোর করিস না সোনা, আমি যে তোর মা। আমার গর্ভের একমাত্র সন্তান তুই, এভাবে ইগনোর করলে আমি ভালো থাকি কি করে।
আমি- তুমি আমার সাথে একই জিনিস করেছো। ভেবেছো তখন আমি কেমন ছিলাম। আমার কষ্টটা কোনোদিন জানতে চেয়েছো?

(আনিতা চুপ হয়ে যায়, সে বুঝতে পারেনা যে আকাশকে কি বলবে।  সেখান থেকে উঠে তার ঘরে যায় আর বিছানায় বসে পড়ে। আনিতা বুঝতে পারে আকাশের কতই না খারাও লেগেছে। আজ এটা উপলব্ধি করতে পারছে আকাশের ইগনোর করার কারণে।  আনিতা নিজের ভুল বুঝতে পেরেছে। ছেলেটা তার যুবক, যুবকরা সুন্দর মেয়েদের প্রেমে পড়তেই পারে। আনিতা এতো সুন্দর যে আকাশ তার প্রেমেই পড়েছে। কিন্তু এভাবে আকাশকে একা না করলে হয়তো আজ আকাশ এমন করতো না। সে নিজেকে দোষারোপ করতে থাকে এসবের জন্য। bangla chati galpo

সকাল ৯টায় দিদা আকাশের রুমে চা নিয়ে যেতে থাকে।

আনিতা- মা চা দাও আমি নিয়ে যাবো।
দিদা- ঠিক আছে এই নে।

আনিতা চা নিয়ে আকাশের রুমে নিয়ে যায়।আকাশ আনিতকে দেখে আবার না দেখার ভান করে

আনিতা- আমি দুঃখিত আকাশ। আমাকে মাফ করে দে সোনা।

আনিতার এই কথা শুনে আকাশ চমকে যায় আর আকাশ তার মায়ের দিকে তাকায়, আনিতা আকাশের দিকে এক মায়াময় দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে। মা তার কাছে ক্ষমা চাইবেএটা আকাশ কখনোই চায়নি। তার সামনে সে তার মায়ের নত মাথা দেখতে চায়নি , সে শুধু চেয়েছিলো তার মা যেন  অনুভব করে করে অবহেলা করলে কেমন লাগে।) bangla chati galpo

মা- আমি জানি নিশ্চয়ই এই দুইবছর তুই অনেক কষ্টে ছিলি। তোর কষ্টে থাকার জন্য আমি দায়ী, আমাকে মাফ করে দে সোনা। আমি তোকে আর ইগনোর করব না, মোটেও না। আমার সাথে কথা বল সোনা। তোর ইগনোর করা আমাকে অনেক কষ্ট দেয় আকাশ,  আমার ভুল বুঝতে পেরেছি সোনা। ক্ষমা করে দে সোনা, আমার সাথে কথা বল। আমাকে আর ইগনোর করিস না…(কাদতে কাদতে)

আনিতা চেয়ার থেকে উঠে আকাশের বিছানায়। আকাশও আনিতার দিকে তাকিয়ে ছিল,  আনিতাও আকাশের চোখের দিকে তাকিয়ে ছিলো।
তারপর আনিতা আকাশকে খেতে বলল। আকাশও চা খেতে শুরু করলো। ওদিকে আকাশের দিদা এসব দেখে খুশি হয়ে হেকো।  আকাশ চায়নি মা তার কাছে ক্ষমা চাইবে। মায়ের এমন দুঃখ দেখে আকাশের চোখে জল চলে আসে। আকাশ মনে মনে সিদ্ধান্ত নেয় যে আর মাকে ইগনোর করবেনা।

১০টার সময়

দাদু- আকাশকে ডাক্তারের কাছে যেতে হবে, ওকে রেডি হতে বলো।
আনিতা- আমিও যাব বাবা।
দিদা-  অফিসে যাবিনা?
অনিতা- না, আজ ছুটি নিয়েছি, আজ আকাশের সাথে থাকব। আমার ছেলে অসুস্থ আর আমি অফিসে যায় কিভাবে। bangla chati galpo

এই কথা শুনে আকাশের দিদা খুশি হয়ে যায়। আকাশও কিছুক্ষণের মধ্যে রেডি হয়ে গেল।  আনিতা আর তার দাদু আকাশকে নিয়ে ডাক্তারের কাছে গেলো।আকাশের দাদু ড্রাইভারের পাশের সিটে বসে কাছে, আনিতা আকাশের পাশে বসে ছিলো তার তাকিয়ে দেখেয় যাচ্ছিলো আকাশ ঠিক আছো কিনা।

আকাশ অসুস্থ ছিল, তাই ঠিকমতো কথা বলতে পারছিল না,  মাথাটা একটু ঘুরছিলো যার কারণে নিজের  অজান্তেই আনিতার কাঁধে মাথা রাখল। আনিতা আকাশের দিকে তাকিয়ে একটা মায়াময় তৃপ্তির হাসি দিলো, আকাশের মাথায় অন্য হাত রেখে আদর করতে থাকে। আনিতা খুশি যে ওর ছেলের মাথাটা ওর কাধে ছিলো। মায়ের জন্য এটাই তো সুখের৷ ছেলের বোঝা মা ছাড়া কেইবা বইতে পারে!

( ২ ঘন্টার মধ্যে তারা আবার বাড়িতে চলে আসে। আনিতাক আকাশকে বিছানায় শুইয়ে দিয়ে বাড়ির অন্য কাজ করতে থাকে আর সাথে সারাদিন আকাশের দেখভাল করতে থাকে।

ওদের পুরনো সম্পর্ক আবার নতুন ভাবে শুরু হচ্ছে। মা যেন ছেলেকে সেই আগের মতই দেখাশোনা করছে। আনিতা খুশি ছিল যে আকাশ তাকে আর অবহেলা করছে না।তবে অসুস্থতার জন্য আকাশ বেশি কথা বলছিল,   আনিতার সব কথার উত্তর দিচ্ছিল হ্যা হু করে। সারাদিন আর সারারাত আনিতা আকাশের দেখা সোনা করে। তার বুকের ধনকে কি সুস্থ হতেই হবে।) bangla chati galpo

পরবর্তী দিন,

আমি যখন ঘুম থেকে উঠলাম, আমি অনেকটা সুস্থ বোধ করছিলাম। আমি একটু ভালো বোধ করছিলাম তাই উঠার চেষ্টা করলাম,  মাত্র 5 টা বাজে। আমি খেয়াল করে দেখি যে মা অন্য পাশে শুয়ে আমার দিকে ফিরে আছে। আমি তার দিকে তাকিয়ে বুঝতে পারলাম যে রাতে আমার দেখাশোনার জন্য সে এখানে শুয়ে পড়েছিলো।  আমি তার দিকে তাকাতে লাগলাম। মা আমার সারারাত যত্ন নিয়েছে এটা ভেবেই মন আরও ভালো হয়ে গেলো।

আমি একটু গভীরভাবে মায়ের দিকে তাকালাম। ঘুমের কারণে নিশ্বাসের ভারী শব্দ শোনা যাচ্ছে, সাথে সাথে নাক একবার ফুলে উঠছে আরেকবার স্বাভাবিক হয়ে যাচ্ছে। ঠিক নাকের নিচেই মায়ের লাল গোলাপি ঠোঁট।  আমার মন বলছিলো মাকে একটা চুমু খাই, তবে তার ঠোঁটে না। ঠোঁটে তো কামুকতার চুমু হয়, আমি মাকে ভালোবাসার চুমু দিতে চাই।  আমি মায়ের কাছাকাছি এগিয়ে গিয়ে তার ডান গালে একটা চুমু একে দিই। bangla chati galpo

মায়ের মুখের উপরে থাকা তার অগোছালো চুল তার কানের নিচে গুজে দিই। আমি অবাক হয়ে মাকে দেখতে থাকি, যেন স্বর্গ থেকে কোনো অপ্সরা আমার বিছানায় শুয়ে আমার সাত জনমকে ধন্য করতে এসেছে। আসলেই আমি ধন্য, মায়ের রূপে, তার ভালোবাসায়। আমাকে ভালোবাসে বলেই তো মা নিজের ইজ্জত অন্যকে দিতেও রাজি হয়েছিলো।

মা তো এমনই হয়। আমি ধন্য মা তোমার সন্তান হয়ে, তোমার মত ত্যাগ স্বীকার করার সাহস যে আমার নেই মা। তুমি শ্রেষ্ঠ মা, তুমি আমার দেবী। যাকে জীবন ভর পুজো করলেও যেন তৃপ্তির শেষ হবেনা।
আমি বালিশে মাথা রেখে আমার পূজনীয় মাকে দেখতে দেখতে আবার ঘুমের দেশে হারিয়ে যায়।

যখন ঘুম থেকে উঠি মা তখন বাড়ির কাজ করছিলো। আমার ওঠে পড়া দেখে মা আমার কাছে এসে কপালে হাত রাখে,

মা-  কেমন লাগছে সোনা?(মায়াময়,আদুরে কন্ঠে)
আমি-  ভালো লাগছে মা।
মা-ঠিক আছে দাত ব্রাশ কর। আমি গরম গরম চা নিয়ে আসছি।
আমি- ঠিক আছে মা। bangla chati galpo

মা রুম থেকে বেরিয়ে গেল, আমি বিছানা থেকে উঠে পড়লাম, মায়ের এমন স্বাভাবিক কথা আমার সুস্থতা যেন হাজার গুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। আমি দাঁত ব্রাশ করে হলরুমে গেলাম,  যেখানে দাদু আর দিদা বসে ছিলো।
দাদু-  কেমন লাগছে এখন?
আমি-  ভালোই আছি দাদু।
দাদু- এখানে এসে বস।

আমিও বসে পড়লাম আর দাদু-দিদার সাথে কথা বলতে লাগলাম। মা তার কাজে ব্যস্ত হয়ে ছিলো।  দিদা মায়ের কাছে গিয়ে জিজ্ঞাসা করলো,

দিদা- আজও কি অফিসে যাবি না?
মা- ভাবছি আকাশ সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত অফিসে যাবোনা।
আমি- আমি ভালো আছি মা। তুমি যাও আমার জন্য চিন্তা করো না।
মা- কিন্তু….. bangla chati galpo

দিদা- তুমি যা, চিন্তা করিস না।
মা- কোন সমস্যা হলে আমাকে ডেকো মা।
দিদা- ঠিক আছে।

মা গিয়ে শাড়ি পাল্টে আসলো।

মা- তুই ঠিক আছিস তো সোনা?
আমি- হ্যাঁ আমি ঠিক আছি মা। আমাকে নিয়ে চিন্তা করো না।
মা- ঠিক আছে সোনা।

এই বলে মা আমার কপালে চুমু দেয়,  আর মিষ্টি একটা হাসি দেয়। বিশ্বাস করুন মায়ের ওই হাসি দোকানের রসগোল্লার থেকেও মিষ্টি ছিলো।

আমি ভাবলাম সকালে মাকে চুমু দিয়েছিলাম সেটা কি মা জেনে গেছিলো। যদিও আমার ভাবনার কোনো ভিত্তিই আমার কাছে নেই। খেয়াল করলাম মা চলে গেছে। bangla chati galpo

(এভাবে 2 দিন কেটে গেল, আকাশ আর আনিতার মধ্যে সবকিছু স্বাভাবিক হয়ে গেছে। কিন্তু আকাশ তার দুষ্টুমি ছাড়েনি। সন্ধ্যায় দিদা আর আকাশ কথা বলছিলো, আনিতাও সেখানে বসেছিলো।)

দিদা- আচ্ছা শোন, দিল্লীতে তুই পড়িস তো নাকি শুধু ঘুরে বেড়াস?
আমি- কি বলো দিদা, ওখানে পড়া ছাড়া আর করার কিইবা আছে!
মা- ঘুরাঘুরিই বেশি করে নিশ্চয় নাহলে পরীক্ষায় মার্ক কম কেন আসে।
দিদা- হ্যাঁ, তোর মার্কস কিছুটা কম আসছে তো।

আমি-আর তোমার জন্য কত মার্ক লাগবে বলো!
দিদা – ৯০% আনলেই হবে।
আমি- কি বলো দিদা। এটা শুধু স্বপ্নেই সম্ভব।
দিদা- ভালো করে পড়াশোনা করলে নিশ্চয় আসার কথা। bangla chati galpo

আমি- হ্যাঁ হ্যাঁ অবশ্যই। (ঠাট্টা করে)
দিদা- যায়হোক ওখানে কার সাথে ঘোরাঘুরি করিস তুই?
আমি- কার সাথে  ঘুরবো, কেউ নেই তো!
দিদা- কেন মা বলছিলো তোর কোন বন্ধু আছে!

আমি- না দিদা, সে অনেক আগের কথা।
দিদা- কেন এখন কি হয়েছে।
আমি- আমি অন্য কারো প্রেমে পড়ে গেছি। তবে সে আমাকে পাত্তা দেয়না।

এই কথা শুনে মা কিছুক্ষণ চুপ হয়ে গেলো। সে জানে এবং বুঝে গেছে যে আমি তার কথায় বলছি।

দিদা- কি তোকে পাত্তা দেয়না? তোকে কেও পাত্তা না দিয়ে কিভাবে থাকে। তোর চেহারা কত সুন্দর, ঠিক তোর মায়ের মত।
আমি- কি লাভ এতো সুন্দর হয়ে। সে তো আমার ভালোবাসা  বুঝতেই চায়না। bangla chati galpo

এই কথা শুনে মা কিছুক্ষন চুপ হয়ে গেল, মা অনেকটা রেগে গেলো। কিন্তু দিদার সামনে রাগ দেখিয়ে কথা বলতে পারলোনা।

মা- হয়তো পরিস্থিতির কারণে সে রাজি হতে পারছেনা। হয়তো সে অসহায় হয়ে পড়েছিলো।
আমি- এটা কোনো কথায় না মা। এমন এমন উন্মাদ হয়ে গেছিলাম যে ওই মেয়ের জায়গায় তুমি হলেও রাজি হয়ে যেতে।(ইচ্ছা করে এমন বলে মাকে মনে করিয়ে দিলাম যে আমি তাকে কতটা ভালোবাসি।)

(এই  কথা শুনে আনিতা অনেক রাগান্বিত হয়, কিন্তু আকাশকে রাগ দেখাতে পারেনা,তার মা থাকার কারণে।  গল্পে গল্পে রাত হয়ে যায়। সবাই খাবার খেয়ে নেয়।)

মা তার ঘরের মধ্যে আমাকে শাসাতে থাকে,

মা- তুই তোর দিদার সাতে  এই কথা বলেছিস কেন?
আমি- কেন বলব না? তাকে বলবো না তো কাকে বলবো!
মা- তুই যা বলতে চাস বলে বেড়া। ঠিক আছে?
আমি- ঠিক আছে মা। তোমার চুলে কিছু একটা আছে।
মা- কি হয়েছে? bangla chati galpo

আমি মায়ের চুল সাফ করার বাহানায় তার গালে একটা চুমু দিয়ে দৌড় লাগাই।

আমি-শুভরাত্রি মা। (পালাতে পালাতে)

(এই চুমুর জন্য আনিতা কি বললো বুঝতে পারলো না। কিন্তু চুমুটা ছিলো ভালোবাসায় ভরা এখানে কোনো নোংরামি ছিলোনা। তাই ওকে কিছু বললো না। শুধু আকাশকে যেতে দেখে মনে মনে বললো,”ছেলেটা আমার বদমাশ হয়ে যাচ্ছে”। এরপর আনিতা নিজের বিছানায় ঘুমিয়ে গেল। )

পরের দিন সকালে,

দাদু অফিসে চলে গেছে।  আমি বাইকে করে যাবার জন্য রেডি হচ্ছিলাম।

আমি-মা
মা- কি হয়েছে?
আমি- আমার শার্টে বোতাম খুলে গেছে। bangla chati galpo

মা- তাহলে আরেকটা শার্ট পর।
আমি- সব কটা ময়লা হয়ে আছে।
মা- তুই কবে ভালো হবি, দাড়া আসছি আমি।

মা বোতাম সেলাই করার জন্য সুই বা সুতো নিয়ে এসেছে।

আমি- মা শার্ট খুলে দেবো তোমাকে?
মা- থাকুক, আমার দেরী হচ্ছে। এভাবেই লাগিয়ে দিচ্ছি।

মা বোতামটা সুই সুতা দিয়ে বোতাম লাগিয়ে দিলো এরপর দাত দিয়ে বাড়তি সুতা কেটে দিলো। আমি মায়ের দিকে তাকিয়েই ছিলাম।

মা- নে হয়ে গেছে।

আমি মাকে দেখেই যাচ্ছিলাম। bangla chati galpo

মা- তুই আমার দিকে এভাবে তাকিয়ে আছিস কেন?
আমি- মা তুমি একদম নিখুঁত। তোমাতে কোনো খুঁত নেই মা। (ধীরে ধীরে বলি)
মা- কি বললি বিড়বিড় করে? থাক আমার শোনার দরকার নেই। আমি গেলাম।
আমি- মা চলো আমি তোমার অফিসে নামিয়ে দেবো।

মা- না, আমি একাই যাবো, কাছেই তো অফিস।
আমি- দেখেছো তুমি আবার আমাকে ইগনোর করছো।
মা- তুই আর ভালো হবিনা তাইনা। ঠিক আছে বাবা চল আমাকে নামিয়ে দে।

আমি বাইকে উঠে বসি আর মা আমার পিছনে বসে,

মা- জোরে ব্রেক মারবিনা যেন!
আমি- ঠিক আছে মা, তুমি আমাকে ভালোভাবে ধরো
মা- ঠিক আছে,  চল যাই। bangla chati galpo

আমি বাইক চালাই আর মা পিছনে বসে থাকে, অফিসে সামনে তাড়াতাড়িই চলে আসি। কারণ বাড়ি থেকে এটার দূরত্ব আধা কিলোমিটার দূরে ছিলো। মাকে নামিয়ে দিই,

মা- ঠিক আছে আমি যাই, তুই যা।
আমি- মা, শোনো।
মা- কিছু বলবি?
আমি- আমি তোমাকে নিতে আসবো।

মা- কেন?
আমি-  যদি তুমি আমাকে ঘুরতে নিয়ে যেতে তবে আমার ভালো লাগত। আমি একা একা বোর হচ্ছি, আর কোলকাতা অনেক আগে দেখেছি, তাই আমার মনেও নেই ঠিকঠাক।
মা- তোর দাদু সাথে ঘুরিস। bangla chati galpo

আমি- মা…………….
মা- ঠিক আছে বাড়ি হয়ে তারপর যাবো। তুই ৪টার সময় আমাকে নিতে আসবি।
আমি- ওকে বাই মা। I Love you……..

(আনিতা আকাশের ভালোবাসার কথা শুনেও না শোনার ভান করে অফিসের ভিতরে চলে যায় যায়। আকাশও তার দাদুর অফিসে যায় আর দাদুর কাজের ধরন শেখে। এরপর 2 টায় বাড়িতে আসে। দিদার সাথে খাবার খেয়ে নেটে কোলকাতার কিছু জায়গা খুজতে থাকি ঘুরতে যাওয়ার জন্য।

আকাশ দিদাকে জানায় যে সে তার মাকে নিয়ে ঘুরতে যাবে এটা শুনে দিদা অনেক  খুশি হয়। আকাশ ৪টার আগেই আনিতার অফিসে চলে যায়। এরপর একসাথে বাড়িতে ফিরে আসে। আনিতা রেডি হওয়ার জন্য নিজের ঘরে চলে যায়।  এরপর হাল্কা নীল শাড়ি পড়ে বের হয়ে আসে। আকাশ আনিতার দিকে হা হয়ে তাকিয়ে থাকে। এই সৌন্দর্যের বর্ণনা তার কাছে নেই।)

মা- হা করে কি দেখছিস? চল বের হই।
আমি-হ্যাঁ চলো মা। bangla chati galpo

মাকে বাইকে চড়িয়ে ঘুরতে বের হয়ে পড়ি।

মা- আমরা কোথায় যাব?
আমি-হ্যাঁ কোথায় যাব?
মা- তুই ঠিক করিসনি?
আমি- তুমিই জানো, এখানকার সব তো তুমিই চেনো!
মা- ঠিক আছে চল যাই।

(আনিতা আকাশকে কোলকাতা চেনাতে থাকে, এভাবে প্রায় ৫ঃ১৫ বেজে যায়।)

আমি- মা এলিয়টের ওখানে চলো।
মা- ওখানে গিয়ে কি করবো।
আমি- সূর্যাস্ত দেখব মা।
মা – ঠিক আছে চল। bangla chati galpo

আমি বাইক নিয়ে এলিয়ট পার্কের উদ্দেশ্যে রওনা দিই। আমরা 20 মিনিটের মধ্যে সেখানে পৌঁছে যাই।
আমদা ভিতরে গিয়ে ঘোরাঘুরি করতে থাকি, মা আমার সাথে ছিলো বলে আমি বেশ খুশি ছিলাম।

আমি-মা তুমি এখানে আগে এসেছো?
মা –  অনেক আগে এসেছিলাম একবার।
আমি- বাবার সাথে?
মা- হ্যা।
আমি- এখন তো আমি এসেছি বাবার জায়গায়, আমার সাথে ঘুরবে তো মা?

মা একটু চুপ হয়ে বলে- হুম ঘুরবো।

আমি মায়ের হাত ধরি, মায়ের একটু অদ্ভুত লাগছিলো তাই আমার হাত থেকে নিজের হাত ছুড়িয়ে নেয়।  আমি কিছুক্ষণের মধ্যেই আবার তার হাত ধরি। bangla chati galpo

আমি-মা তোমার কি মনে আছে, তুমি এভাবেই আমার হাত ধরে ঘুরিয়ে নিয়ে বেড়াতে?
মা-হ্যাঁ, মনে আছে। তোর হাত ধরে রাখতাম, যেন খেলতে খেলতে তুই  অন্যকোথাও চলে না যাস।

মা এবার আর হাত ছাড়িয়ে নেয়না,  আমিও মায়ের হাত ধরে হাঁটতে লাগলাম।  সেখানে সন্ধ্যা হয়ে যায়, কিছু লোক এসে আমাদের হাত ধরে রাখা দেখছিল, মাও বুঝতে পারল কেউ কেউ আমাদের দেখছে তবুও সে না দেখার ভান করে। আমি আর মা ঝিলের ধারে বসে সুর্যাস্ত দেখতে থাকি।

মা গভীর চিন্তায় মগ্ন হয়েছিলো আমি মায়ের দিকে তাকিয়ে বলি,

আমি- কি ভাবছো মা?
মা- কিছুই না।
আমি- বলো না মা, তুমি আমাকে না বললে কাকে বলবে? bangla chati galpo

(অনিতা এই কথা শুনে মনে করে, “হ্যাঁ, আমি আমার সমস্যা আকাশকে বলব না তো কাকে বলব, ওই তো একজন যে আমাকে বেচে থাকার ইচ্ছা জাগায়। আমার সন্তানের সুন্দর ভবিষ্যৎ আমাকে বাচতে শেখায়।”)

আমি- তুমি কি আমার কথা ভাবছো মা?
মা- আমি কেন তোর কথা ভাববো?
আমি- মা আমি জানি, দিদা আমাকে সব পরিষ্কার করে বলেছে। তুমি একা একা কত সমস্যার মুখোমুখি হয়েছো।   তুমি সবার কত যত্ন নিয়েছো।, আমাকে নিয়ে কত ভাবো তুমি। , আমাকে নিয়ে এত ভাবা ছেড়ে দাও মা, এতো ভাবলে ভালোবাসা হয়ে যাবে মা।

এই কথা শুনে মা আমার দিকে তাকায়। আমি তার পাশেই বসে ছিলাম।

আমি- এখন তুমি তোমার কথা ভাবো মা, এখন তোমার সমস্যা আমার সমস্যা মা।  আজকে থেকে আর ভাববেনা এতো মা।

এই বলে আমি মায়ের গালে একটা চুমু দিলাম। এতে মা অবাক হয়ে গেল।

মা- কি করছিস, কেউ দেখলে কি ভাববে! (ধীর স্বরে)
আমি – কি আর ভাববে? একজন bf কি তার gf কে ভালোবাসছে? bangla chati galpo

এই কথা শুনে মা কিছু বলতে গেলো কিন্তু তার আগেই আমি বললাম,

আমি- আরে মা তুমি ভুলভাবে এই কথাটা নিওনা। প্রত্যেক ছেলের প্রথম gf তার মা, তাই না?
ঠিক একইভাবে কোনো মায়ের প্রথন bf তার ছেলে। কারণ একটা মেয়ে মা হওয়ার পর তার কোলের ছোট্ট   সন্তানকে ভালোবাসে, তার কপালে চুমু দেয়, তার গালে ঠোঁটে চুমু দেয়। তাহলে মা আর ছেলে bf আর gf হলো কিনা!

(এটা শুনে অনিতা ভাবলো, “হ্যাঁ, আকাশ যা বলছে ঠিকই বলছে।” সেও যুক্তিটা সঠিক মনে করে আকাশকে কিছু বলল না। এরপর দুজনেই বসে বসে কথা বলতে লাগলো। সন্ধ্যা হয়ে যায়, তখন আনিতা আর আকাশ ওখান থেকে উঠে হাঁটতে থাকে।)

মা- চল এখান থেকে যাই।
আমি- কোথায় মা?
মা- তুই চল তো আমার সাথে।
আমি- কেন মা?
মা-  এতো কথা না বলে চল। bangla chati galpo

মা আমাকে সেখান থেকে বাইরে নিয়ে গেলো। আমি জানি কেন মা আমাকে নিয়ে বাইরে নিয়ে গেলো। একটু আগে মাকে চুমু দিয়েছি সেটা কিছুলোক দেখে ফেলেছে, তাই মা লজ্জা পেয়ে আমাকে নিয়ে বের হলো। এরপর আরও একটু ঘুরে বাড়িতে ফিরে এলাম।

রাতে শোবার সময়,

আমি- মা একটা চুমু দাও না….
মা- না তুই শুয়ে পড়।
আমি- মা হয়ে ছেলেকে চুমুও দেবেনা তুমি? আমি কোনো প্রেমিকার চুমু চাচ্ছিনা মা। মায়ের চুমু চাচ্ছি।

মা অবশেষে আমাকে চুমু দিয়ে সেখান থেকে চলে যায়। আমি তৃপ্তির সাথে চোখ বুঝি। আমি যেন সেই দুই বছর আগের হাসিখুশি আকাশ হয়ে গেছি। মা থাকলে আমি হাসি খুশি থাকতে বাধ্য। আমি যে মা ছাড়া অচল। তাইতো আমার সব ভালোবাসা আমার মাকে ঘিরে।

ক্রমশ……

বিঃদ্রঃ লাইক আর রেপুটেশন দিতে ভুলবেন না। যারা রেটিং দেননি তারা ৫স্টার রেটিং দেবেন। এতে করে আমার গল্পের পরবর্তী পর্ব দেওয়ার আগ্রহ বাড়ে।

Leave a Comment